সাভারে সাবেক সেনা সদস্য হত্যার ঘটনায় আটক ৩

আগের সংবাদ

সাভারে চাঁদাবাজদের ছুরিকাঘাতে পুলিশ সদস্য আহত, আটক ১০

পরের সংবাদ

আশুলিয়ায় জনপ্রতিনিধির উপস্থিতে যুবলীগ কর্মীদের উপর হামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত :৬:৪৪ অপরাহ্ণ, ০২/০৩/২১

আশুলিয়ায় ঝুট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জেরে মসজিদের মাইকে ‘ডাকাত পড়ার’ ঘোষণা দিয়ে স্থানীয় যুবলীগ কর্মীদের উপর হামলার চালিয়েছে ইউপি সদস্য ও তার ছেলের সন্ত্রাসী বাহিনী। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে, ভাঙচুর করা হয়েছে ১৬টি মোটরসাইকেল।

মঙ্গবার সকাল ৯টার দিকে আশুলিয়ার ভাদাইলের পবনার টেক এলাকায় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থলের পাশে একটি বাড়ির সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, কয়েকটি মোটরসাইকেলে করে বেশ কয়েকজন ব্যক্তি ওই এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময় হঠাৎ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা করে একটি দল। এ সময় কয়েকজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে দেখা যায় । এছাড়াও ভাঙচুর করা হয় মোটরসাইকেল।

ওই ফুটেজে আরও দেখা যায়, হামলার সময় ঘটনাস্থলে ইউপি সদস্য সাদেক ভুইয়া মোবাইল ফোনে অন্য কারও সঙ্গে কথা বলছে।
বক্তব্যের জন্য সাদেককে না পাওয়া গেলেও কথা হয় তার ছেলে মনির ভূঁইয়ার সঙ্গে। তিনি জানান যুবলীগ নেতা কবিরের লোকজন তার ওপর হামলা করতে এলাকায় আসে। তখন এলাকায় পারিবারিক মসজিদ থেকে ‘ডাকাত পড়েছে’ বলে ঘোষণা দেয়া হয়।
এ ব্যাপারে কবির হোসেন সরকার বলেন, ‘ইপিজেডের এক্সপেরিয়েন্স ফ্যাক্টরিতে আমার বৈধ ব্যবসা। কাইলকাও আমার ফ্যাক্টরির লেবার বাইর কইরা দিছে ওর (ইউপি সদস্যের) ছেলে।

‘আইজ সকালে আমার ম্যানেজার ১৫-২০ জন পোলাপান নিয়া ফ্যাক্টরিতে ভাদাইলের রাস্ত দিয়া রপ্তানি যাইবার লইছিল। পিছন দিক দিয়া ওরা হামলা করছে। দুইজনকে কুপায় আহত করছে। তারা নারী ও শিশু হাসপাতালে ভর্তি আছে।’এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মসজিদের মাইকে মেম্বার ভূঁইয়ার বাড়িতে ডাকাত পড়ছে শুইনা আমি আসছি। আইসা দেখি অনেকগুলা মোটরসাইকেল ভাঙা পইরা রইছে। তবে কারা ভাঙছে আমি দেখি নাই। এলাকার লোকজন মাইকে ডাকাত পরার কথা শুইনা আসলেও কেউ মারামারি করে নাই।’

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ জিয়াউল ইসলাম বলেন, ঝুট ব্যবসায় নিয়ে আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকার ও স্থানীয় ইউপি সদস্য সাদেক ভূঁইয়ার মধ্যে বিরোধ ছিল। এর জেরে সকালে তাদের কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়।
আহতদের ব্যাপারে কোনো তথ্য নেই বলে জানান জিয়াউল। সংঘর্ষের পর ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল।
অন্যদিকে একইদিন বিকেলে যুবলীগ নেতাকর্মীদের উপর হামলার অভিযোগে মনির ভ’ইয়াকে আটক করে পুলিশ।