আন্দোলনতো কেবল শুরু, হুংকার ট্রাম্পের

আগের সংবাদ

বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলাম আর নেই

পরের সংবাদ

শুক্রবার থেকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহের পূর্বাভাস

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত :১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ, ২০/০১/২১

মাঘ মাসের প্রথম পাঁচ দিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। বুধবার থেকে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের কিছু জেলায় শুরু হওয়া এই শৈত্যপ্রবাহ সোমবার বিদায় নেয়। তবে বিদায় নিতে না নিতেই ফের শৈত্যপ্রবাহের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, শুক্রবার থেকে ফের বিভিন্ন এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ শুরু হতে পারে। ওই শৈত্যপ্রবাহ তীব্র মাত্রায় রূপ নেয়ারও শঙ্কা রয়েছে। দেশের আকাশে মেঘ থাকায় বুধ ও বৃহস্পতিবার প্রায় সারাদেশেই রাতের তাপমাত্রা ১-৩ ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়তে পারে।

একই সঙ্গে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। এ দুই দিন দেশের বিভিন্ন এলাকায় হালকা বৃষ্টিরও সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানায় আবহাওয়া অফিস।

অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ মঙ্গলবার রাতে দেশ রূপান্তরকে বলেন, আকাশে মেঘ থাকায় সূর্যের আলো সরাসরি প্রবেশ করতে পারবে না, এ কারণে সারাদেশেই দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৩ ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়তে পারে। এ দুই দিন দেশের অনেক জায়গায় হালকা বৃষ্টি হতে পারে। বৃষ্টির মাধ্যমে মেঘ কেটে গিয়ে শুক্রবার থেকে আবার দিনের তাপমাত্রা বেড়ে যাবে এবং রাতের তাপমাত্রা কমতে শুরু করবে। তখন ফের কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ শুরু হতে পারে।

অধিদপ্তরের দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, চলতি জানুয়ারি মাসে ১-২টি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এরমধ্যে একটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহে রূপ নিতে পারে।

অধিদপ্তরের তথ্যমতে, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪-৬ ডিগ্রির মধ্যে থাকলে তাকে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বলা হয়। চলতি মাসে ইতিমধ্যে একটি শৈত্যপ্রবাহ বিদায় নিয়েছে। এই শৈত্যপ্রবাহে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সাতের নিচে নামলেও ৬ ডিগ্রিতে যায়নি।

শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাওয়া সম্ভাব্য শৈত্যপ্রবাহ তীব্র মাত্রায় রূপ নিতে পারে কি না এমন প্রশ্নে বজলুর রশিদ জানান, এটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহে রূপ নিতে পারে।

আগামী দুইদিন দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমার সম্ভাবনা থাকলেও মঙ্গলবার প্রায় সারাদেশেই দিনের তাপমাত্রা সামান্য বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে টেকনাফে ২৮ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন (সোমবার) একই স্থানে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া মঙ্গলবার রাতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পাওয়া গেছে শ্রীমঙ্গলে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন রাজধানীতে রাতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৩ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, দেশের সব বিভাগের দু’এক জায়গায় হালকা বা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা ১-৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। সূত্র: দেশ রুপান্তর