আশুলিয়ায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার

আশুলিয়ায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার

আগের সংবাদ

শুভ জন্মদিন চিত্রনায়িকা একা

পরের সংবাদ

তিন নারী উদ্যোক্তা ও একটি স্বপ্ন

হাসান ভূঁইয়া

প্রকাশিত :৯:৩৭ অপরাহ্ণ, ২৩/০৭/২০

আনোয়ারা আক্তার আনু, ইসরাত জাহান সুমি ও মাহিমা মোরশেদ মীম তিন জনই নারী উদ্যোক্তা।তাদের একজন কুমিল্লার স্থানীয়,একজন খাগড়াছড়ির আরেকজনের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়। তিনজনই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। পড়াশোনার পাশাপাশি কিছু করতে হবে এমন স্বপ্ন ছিল তাদের প্রত্যেকের মধ্যে।আর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্যই তারা তিন বান্ধবী একত্রে মিলিত হয়ে তৈরী করেছে তাদের স্বপ্নের প্রতিষ্ঠান “অঙ্গনা”।

প্রথমে হিজাব দিয়ে তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম শুরু করলেও বর্তমানে হিজাব ছাড়াও থ্রি পিচ, শাড়ি ও চুড়ি অনলাইনে অর্ডার নিয়ে ডেলিভারি দিচ্ছে তারা।

উদ্যোক্তা মাহিমা মোর্শেদ মীম বলেন “নিজের মধ্যে সবসময় একটা ইচ্ছা কাজ করত যে পড়াশোনার পাশাপাশি কিছু করব যাতে নিজে স্বাবলম্বী হতে পারি,নিজে নিজে কিছু করতে পারি,সেই চিন্তা থেকেই অঙ্গনা’র সৃষ্টি। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়টি যেহেতু মুল শহর থেকে একটু দুরে তাই কিছু কিনতে গেলে শহরে যেতে হয় সবাইকে,এইসব চিন্তা করেই ক্যাম্পাসের মেয়েদের কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন ডিজাইনের হিজাব বিক্রির মাধ্যমে আমরা আমাদের ব্যাবসা শুরু করি।প্রথম দিকে আমাদের কোন ফেসবুক পেইজ ছিলনা আমরা ক্যাম্পাসের বিভিন্ন মেলায় ষ্টল দিতাম,কুমিল্লা শহরে কোন মেলা হলে আমরা যেতাম আমাদের পণ্য নিয়ে এইভাবে আমরা পথচলা শুরু করি।আলহামদুলিল্লাহ ব্যাপক সাড়া পাওয়ার কারণে আমরা এখন পেইজ খুলেছি অনলাইন অর্ডার নিয়ে ডেলিভারি দিচ্ছি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।আমাদের মুল ইচ্ছা হল বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আপুদের স্বল্প মুল্যে ভাল মানের পণ্য দেওয়া।”

আরেক উদ্যোক্তা আনু বলেন, “কিছু স্বপ্ন অনেক আগে থেকে ভাবা হয় কিন্তু কিছু আবার হুট করেই হয়ে যায়। আমাদের “অঙ্গনা”র শুরুটাও হুট করেই হয়েছিল। ২০১৯ সালের ২৩ শে অক্টোবর “অঙ্গনা” আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। কলেজ গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ওঠা মানে এই নয় যে শুধু পড়ালেখাই করতে হবে বরং বিশ্ববিদ্যালয়টা একটা মুক্ত মঞ্চ যেখান থেকে হাজারটা স্বপ্নের দুয়ার খুলা যায়।”

ইসরাত জাহান সুমী মনে করেন অধম্য ইচ্ছা থাকলে মানুষ যে কোন কাজে সফলতা পায়,তিনি বলেন “পড়াশোনার পাশাপাশি তাদের কিছু করতে হব এমন স্বপ্ন ও আশা নিয়ে স্বল্প পরিসরে শুরু করলেও আমাদের পরিশ্রমের ফলে আলহামদুলিল্লাহ “অঙ্গনা” আজ অনেক আপুদের কাছে আস্থার একটা জায়গা করতে পেরেছে”।

অঙ্গনাতে এখন বিভিন্ন ধরণের দেশীয় ও বিদেশী থ্রী পিছ,শাড়ি,চুড়ি,হিজাব পাওয়া যাচ্ছে এবং সামনে তারা মেয়েদের জন্য কসমেটিকস সহ আরো নিত্যপ্রয়োজনীয় ভাল মানের পণ্য স্বল্প মুল্যে দেওয়ার জন্য তৈরি করছেন।