ক্ষমা চাইলেন জাকির নায়েক

Print Friendly, PDF & Email

ধর্ম ডেস্ক: সম্প্রতি স্পর্শকাতর বিষয়ে মন্তব্য করে মালয়েশিয়ায় সমালোচনায় পড়েন ইসলামি বক্তা জাকির নায়েক। এবার তিনি ক্ষমা চাইলেন।

দ্য হিন্দু জানায়, পুলিশের জেরার পরদিন মঙ্গলবার তিনি এই বিষয়ে মন্তব্য করেন।

জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নিয়ে জাকিরের মন্তব্য নিয়ে বিতর্কের ঝড় উঠে মালয়েশিয়ায়।

জাকির নায়েক বলেন, “ভারতে মুসলিমদের তুলনায় মালয়েশিয়ায় হিন্দুরা ১০০ ভাগের বেশি সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছে।” এ ছাড়া দেশটিতে বসবাসকারী চীনা বংশোদ্ভূতদের ‘অতিথি’ বলে উল্লেখ করেন। এর জেরে সোমবার দীর্ঘ সময় এই ধর্মীয় বক্তাকে পুলিশ জেরা করে।

জাতিগত পরিচয় ও ধর্ম মালয়েশিয়ায় খুবই স্পর্শকাতর বিষয়। দেশটির ৬০ ভাগ নাগরিক মুসলিম। বাকিদের বেশির ভাগ জাতিগত চীন ও ভারতীয়।

তিন বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বসবাস করছেন জাকির নায়েক। তিনি নিজেকে ‘বর্ণবাদী নই’ বলে দাবি করেন। বরং তার বক্তব্যকে প্রসঙ্গের বাইরে গিয়ে পরিবেশন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন।

মঙ্গলবার এক বিবৃতি তিনি বলেন, “কোনো ব্যক্তি বিশেষ বা সম্প্রদায়কে আহত করা আমার উদ্দেশ কখনোই ছিল না।”

তিনি আরও বলেন, এ ধরনের মন্তব্য ইসলামের মূল শিক্ষার বিপরীতে। তাই ভুল বোঝাবুঝির জন্য তিনি আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাইছেন।

ভারতে একাধিক মামলার আসামি জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় স্থায়ীভাবে থাকার অনুমতি পেয়েছেন। তবে বিতর্কিত মন্তব্যের পর তার বিরুদ্ধে অনেকে তোপ দাগেন। এর মধ্যে সাতটি রাজ্যে জন সমাগমে বক্তৃতা দেওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা এসেছে।

রোববার দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, আপনি ইসলাম নিয়ে কথা বলতে পারেন। কিন্তু জাতিগত রাজনীতি নিয়ে কথা বলতে পারেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here