ডেঙ্গু হলে কী খাবেন

0
26
Print Friendly, PDF & Email

হেল্থ ডেস্ক: দেশে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা অনেক বেড়ে গেছে। যেহেতু দেহের তাপমাত্রা অনেক বেশি থাকে, তাই খুব সহজে পুষ্টি সংক্রান্ত সমস্যা হতে পারে। পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমতে পারে। যে কারও ডেঙ্গু হতে পারে। তাই একেক ধরনের শারীরিক সমস্যায় একেক ধরনের সমাধান প্রয়োজন। নিজস্ব যত্নের পাশাপাশি খাবার বা ডায়েটের বিষয়টিও নজরে আনতে হবে। বিশেষ করে পানি ও ভিটামিনের ওপর।

কিছু পরামর্শ

অনেক বেশি তাপমাত্রার কারণে প্রথমত পানিশূন্যতা দেখা দিতে পারে। স্বাভাবিক অবস্থায় আমরা জানি ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান জরুরি। আর ডেঙ্গুর ক্ষেত্রে প্রয়োজন আরও বেশি। তবে একজন ব্যক্তি কতই-বা পানি পান করতে পারে! প্রয়োজন সে জন্য ফলের জুস, ডাবের পানি, লেবুর শরবত, স্যুপ ইত্যাদি। ফলের মধ্যে লেবু, কমলা, আনার, আনারস, ডাবের পানি দিতে হবে। এর পাশাপাশি জাউভাত, সবজির স্যুপ, সবজির জুস খাওয়া ভালো।

দেহের পেশির ক্ষয় এবং সঞ্চিত গ্লাইকোজেন ভাঙে। পূরণ করতে পাতলা খিচুড়ি, নরম জাউভাত খেতে হবে।

চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে সহজপাচ্য খাবার খাওয়া প্রয়োজন।

নতুন কোনো সমস্যা যাতে না হয় সে জন্য ঘরের তৈরি খাবারে অগ্রাধিকার দিন।

পর্যাপ্ত বিশ্রাম অবশ্যই প্রয়োজন।

ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের করণীয়

ডিহাইড্রেশনের কারণে অনেকে স্যালাইন খাওয়া প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। ডেঙ্গু ক্ষেত্রে ওরস্যালাইনের চেয়ে হাতে বানানো স্যালাইন বেশি কার্যকর। যদি জ্বরের পাশাপাশি ডায়রিয়া থাকে তাহলে ওরস্যালাইন খাওয়া যাবে। উচ্চ রক্তচাপ থাকলে স্যালাইন না খেয়ে ফ্রুট জুস, কম চিনিযুক্ত লেবুর শরবত খাওয়া যাবে। তাছাড়া লেবু, কমলা, আনার, আনারস, ডাবের পানি সবাই খেতে পারবেন।

শক্তি বৃদ্ধির জন্য জাউভাত, পাতলা খিচুড়ি মুরগির মাংসযোগে খাওয়া যায়।

ডায়াবেটিস রোগীদের লেবুর শরবতের চেয়ে লেমন জুস ভালো। যেভাবে লেমন জুস বানাবেন- ১ গ্লাসের জন্য খোসাসহ মাঝারি সাইজের ১টা লেবু কিউব করে কেটে পুরো পানিতে মিশিয়ে ব্লেন্ড করে ছেঁকে নিন। সামান্য লবণ, বিট লবণ, ১ চিমটি গোলমরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে নিলেই লেমন জুস তৈরি হয়ে যায়। তবে লেমন জুস বানানো সঙ্গে সঙ্গে খেতে হবে।

শিশুদের ডেঙ্গুজ্বরে করণীয়

ডেঙ্গুজ্বরে সবচেয়ে বিপদগ্রস্ত শিশুরা। দেহের তাপমাত্রার সঙ্গে দ্রুত ওজন কমতে থাকে। তাই ডেঙ্গুজ্বর হওয়ার পর থেকেই তাকে ফলের জুস, পানি, স্যুপ, ডাবের পানি বেশি করে খাওয়াতে হবে। জাউভাতের সঙ্গে বোনলেস চিকেন মিশিয়ে ক্যালরি বাড়িয়ে খাবার পরিবেশন করুন। বিশ্রাম খুবই জরুরি বিষয়।

প্রচুর মাথায় পানি দেওয়া, বারবার শরীর মুছে দেওয়া বিষয়গুলো অগ্রাধিকার দিন। রোদের সরাসরি আলো থেকে দূরে রাখুন। বাইরের কোনো খাবার খাওয়ানো প্রয়োজন নেই।

কিছু কিছু ডেঙ্গুজ্বরে প্ল্যাটিলেট বা রক্তের অণুচক্রিকা কমে যায় না। কিন্তু সেখানে পানি সমতা নষ্ট হয়। এমন অবস্থায় অবশ্যই হাসপাতালে যেতে হবে, কারণ এখানে যতটুকু পানি দেহ থেকে বেরিয়ে যায় ততটুকু পানি খেতে হয়।

পরিস্থিতি বুঝে ডেঙ্গুর কাজ করতে হবে। কিছু কিছু গবেষণায় দেখা গেছে পেঁপে পাতার রস খেলে রক্তের অনুচক্রিকা বা প্ল্যাটিলেট বাড়ে। পরিস্থিতি খারাপ হলে অবশ্যই হাসপাতালে নিতে হবে।

সৈয়দা শারমিন আক্তার

সৈয়দা শারমিন আক্তার প্রিন্সিপাল নিউট্রিশনিস্ট ও সিইও, ডায়েট কাউন্সেলিং সেন্টার

সূত্র: দেশ রুপান্তর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here